Text size A A A
Color C C C C
পাতা

সিটিজেন চার্টার

বিদ্যুৎ সভ্যতার চাবিকাঠি এবং আর্থ সামাজিক উন্নয়নের পথিকৃত।এ বাস্তবতাকে উপলব্ধি করে দেশের গ্রামীণ জনগণের জীবনমান ও আর্থ সামাজিক উন্নয়নের লক্ষ্যে ৩১ শে অক্টোবর ১৯৭৭ সালে জারী কৃত মহামান্য রাষ্ট্রপতির অধ্যাদেশ বলে পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড প্রতিষ্ঠা করা হয়।সমবায়ের সার্বজনীন নীতিমালা এবং “লাভ নয় লোকসান নয়” এ দর্শনের উপর ভিত্তি করে এবং গ্রাহক গণ কে সমিতির প্রকৃত মালিকানার স্বীকৃতি দিয়ে এ যাবত দেশের ৪২৫ টি উপজেলার সমন্বয়ে ৮০ টি পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি গঠিত হয়েছে। গ্রামইজাতীয় উন্নয়নের প্রাণ কেন্দ্র।গ্রাম-বাংলার প্রত্যন্ত অঞ্চলে অবহেলিত অনগ্রসর ও দরিদ্র জন সাধারণের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের দৃঢ় প্রত্যয় নিয়েই পল্লী বিদ্যুতায়ন কার্যক্রম শুরু হয়।সেই মহৎ উদ্দেশ্যকে সামনে রেখেই ২০১৫ সালে কুমিল্লা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-৪ এর যাত্রা শুরু হয়। ২০১৫ ইং সালে কার্যক্রম শুরুর প্রারম্ভিক সময় হতে কুমিল্লা জেলার লাকসাম, নাঙ্গলকোট, মনোহরগঞ্জ উপজেলার শিল্প ও আর্থ-সামাজিক অবস্থার উন্নয়নে ব্যাপক ভূমিকা রেখে চলেছে।আধুনিক সেচ ব্যবস্থার মাধ্যমে খাদ্যে স্বয়ং সম্পূর্ণতা অর্জন, বৃহৎ-সহ মাঝারি ও ক্ষুদ্র শিল্পের ব্যাপক প্রসার এবং শিক্ষা-স্বাস্থ্য ও তথ্য প্রযুক্তি বিকাশের ক্ষেত্রে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে কুমিল্লা জেলা তথা সারা বাংলাদেশের মানুষের জীবন যাত্রার মান উন্নয়নে দেশ ব্যাপী পরিচালিত পল্লী বিদ্যুতায়ন কার্যক্রমের একটি অংশ রূপে কার্যকর ভূমিকা পালন করছে।লাভ নয়, লোকসান নয়- গ্রাহক গণই প্রকৃত মালিক ও সেবক মূলনীতিতে এবং সমবায় ভিত্তিতে কুমিল্লা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-৪-এর কার্যক্রম পরিচালিত হয়।